তারুণ্যের মেলায় বাগেরহাটের তরুণরা নাগরিক ইস্যুতে তুলে ধরলেন তাদের প্রত্যাশা : ‘আমিও জিততে চাই ইয়ুথ ফেয়ার’

5
বাগেরহাটের তরুণরা কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধিসহ সরকারি সেবাসমূহ আরও সহজে পেতে চান। একই সাথে নীতি নির্ধারণী সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় তরুণদের মতামতকে গুরুত্ব দেয়ারও আহ্বান জানান তারা। মঙ্গলবার শহরের সাংস্কৃতিক ফাউন্ডেশনে (এ সি লাহা মিলনায়তন) দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত “আমিও জিততে চাই ইয়ুথ ফেয়ার” এ অংশগ্রহণকারী তরুণরা এভাবে তাদের নানা প্রত্যাশার কথা তুলে ধরেন।
মাল্টি পার্টি অ্যাডভোকেসি ফোরাম (এমএএফ), বাগেরহাটের উদ্যোগে আয়োজিত এ মেলায় সহযোগিতায় ছিলো ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল। ইউএসএআইডি-এর অর্থায়নে স্ট্রেনদেনিং পলিটিক্যাল ল্যান্ডস্কেপ (এসপিএল) প্রকল্পের আওতায় “আমিও জিততে চাই”- ক্যাম্পেইনটি রাজনৈতিক দল ও অন্যান্য অংশীদারদের কাছে নাগরিকদের প্রত্যাশা তুলে ধরার মাধ্যম হিসেবে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে।
ইউথ ফেয়ারে অংশ নিয়ে বাগেরহাটের একাধিক তরুণ বলেন, একদিকে চাকুরীর সুযোগ যেমন কম অপরদিকে উদ্যোক্তা হতেও রয়েছে জটিল সব প্রতিবন্ধকতা। তরুণদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ও সহজ ঋণসুবিধার দাবি জানান তারা। এছাড়া, সরকারের স্বাস্থ্যকেন্দ্রে সেবার মানের উন্নতি, নাগরিকদের নিরাপত্তাকে প্রাধান্য দেয়া, নিরাপদ পানি সরবরাহ, অবহেলিত ও সুবিধা-বঞ্চিতদের জন্য উন্নত সেবা, নারীবান্ধব পাবলিক টয়লেট, যৌন হয়রানি বন্ধ, কর্তৃপক্ষের স্বচছ্বতা ও জবাবদিহিতা, পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা, মশা নিধনের কার্যক্রম আরও জোরদার করতে তাগিদ আসে তরুণদের কাছ থেকে।
মেলায় অংশগ্রহণকারীরা বলেন, বেশিরভাগ তরুণই রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে নিজেদের সরিয়ে রেখেছেন এবং তারা রাজনৈতিক আলোচনায় আগ্রহী নন, কারণ তারা মনে করেন তাদের মতামত সেভাবে গুরুত্ব পায় না। দেশের উন্নয়নে তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে, তরুণদের প্রত্যাশাগুলোকে গুরুত্ব দেয়ার জন্য নীতি নির্ধারক এবং রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি অংশগ্রহণকারী তরুণরা আহ্বান জানিয়ে এসব প্রত্যাশা তুলে ধরেন।
এতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও যুব সংগঠনের শতাধিক তরুণ অংশগ্রহণ করেন। এসময় নাগরিক ইস্যু নিয়ে বির্তক, কুইজ ও ভিডিও বার্তা তৈরি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
ইয়ুথ ফেয়ারের অংশ হিসেবে আয়োজিত ‘আমিও জিততে চাই বিতর্ক প্রতিযোগিতা’য় সাতটি কলেজের সাতটি বিতর্ক দল অংশ নেয়। প্রতিযোগিতায় বিতার্কিকরা নাগরিক ইস্যুর সমাধান বিষয়ে নানা যুক্তি ‍ও পাল্টাযুক্তি তুলে ধরেন।
মেলায় ভিডিও বার্তা প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে তরুণদের ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়, এককভাবে ক্যামেরার সামনে দু-মিনিটে তারা তাদের বক্তব্য তুলে ধরেন পরে তাদের মধ্যে তিনজনকে পুরস্কৃত করা হয়।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই নাগরিক সমস্যাসমূহ তুলে ধরে রুদ্র নাট্যদল ‘একজন জামিলা’ নামে একটি মঞ্চ নাটক পরিবেশিত হয়, এর উপর ভিত্তি করে আয়োজিত কুইজ প্রতিযোগিতায় ব্যাপক অংশগ্রহণ চোখে পড়ে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক খালিদ হোসেন। সভাপতিত্ব করেন এম এ এফ কনভেনর রিজিয়া পারভিন,  বাগেরহাট জেলা মহিলা দলের সভাপতি  শাহিদা আক্তার,  বাগেরহাট জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক হাজরা শহিদুল ইসলাম বাবলু, বাগেরহাট জেলা মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. শরিফা খানম, বাগেরহাট জেলা জাতীয়তাবাদী দলের সদস্য সাজ্জাদ হোসেন,  পিএফজির কো-অরডিনেটর এস কে এ হাসিব প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন আয়োজক বাগেরহাটের মাল্টি পার্টি অ্যাডভোকেসি ফোরামের আহ্বায়ক রিজিয়া পারভিনসহ ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল-এর পক্ষ থেকে রেজিওনাল ম্যানেজার রুবাইয়াত হাসান, রেজিওনাল কো-অরডিনেটর মোঃ ইয়াসিন আরাফাত ও ইলেকটোরাল প্রোগ্রাম এসিসট্যানট সিলমী সাদিয়া।